জাজিরা বিকে নগরে হাত বাড়ালেই পাওয়া যায় ইয়াবা

প্রকাশিত: ২৪-০৬-২০১৮, সময়: ০৬:১১ |
Share This

শরীয়তপুর প্রতিনিধি:

মাদক সম্রাট জসিমের কল্যাণে শরীয়তপুর জাজিরা বি.কে নগর দৈনিক বাজার মালেক হাওলাদার কান্দিসহ আশে পাশে হাত বাড়ালেই পাওয়া যাচ্ছে ইয়াবা, ফেনসিডিল, গাঁজা, বিয়ার, হুইস্কিসহ বিভিন্ন ধরনের মাদক সামগ্রী।

এতে করে মাদকাশক্ত হয়ে পড়েছে তরুন ও যুব সমাজ । হাতের কাছে সহজে মাদক পাওয়ার কারণে প্রতিদিনই মাদকাসক্তের সংখ্যা বাড়ছে। বিশেষ করে স্কুল-কলেজগামী শিক্ষার্থীরা। আর নেশার টাকা জোগাড় করতে গিয়ে মাদকসেবীরা চুরি ডাকাতিসহ বিভিন্ন অপরাধ কর্মকান্ডে জড়িয়ে পড়ছে

জানা যায়, এ অঞ্চলের সাধারণ স্কুল কলেজের শিক্ষার্থীদের হাতে হাতে পৗছে গেছে ইয়াবা। এ এলাকার বড় একটা সেক্টর রাজনীতি আর অর্থনীতি- সব ইয়াবাকে কেন্দ্র করেই চলে। রাজনীতিবিদ, ব্যবসায়ী মদি দোকান থেকে শুরু করে এমন কোনো সেক্টর নেই যে, যাদের ইয়াবার ব্যবসায়ে জড়িত করেননি জসিম হাওলাদার ওরফে ইয়াবা জসিম।

ইয়াবাকে জসিম এতটাই লাভজনক ব্যবসা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেছেন যে, মদি দোকান, কৃষি কাজ, বিভিন্ন ব্যবসাসহ বিভিন্ন বৈধ ব্যবসা ছেড়ে ইয়াবা ব্যবসায় অর্থ লগ্নি করছে। আর এসব কারণে দেশের পূর্ণভুমি খ্যাত শরীয়তপুর এলাকা হয়ে উঠেছে মাদকের স¦র্গরাজ্য ।

উল্লেখ্য, জসিম হাওলাদার ওরফে ইয়াবা জসিম অল্প বয়সে তিনি কোটি হয়ে ওঠছে।
বি কে নগরের সাধারণ মানুষের অভিযোগ ,জাজিরা বিকে নগরের , ইয়াবার গডফাদার জসিম সিন্ডিকেটের হাতে।
সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, বিকে নগর দৈনিক বাজারের চরপার এলাকা, ও তার আশে পাশে বাড়ির চিপায় চাপায় মাদক বিক্রির নিরাপদ জায়গা হিসেবে ব্যবহার করছে মাদক ব্যবসায়ী জসিম হাওলাদার ওরফে ইয়াবা জসিম।
কারণ এখানে নিরিবিলি জায়গায় থাকায় মাদক ব্যবসায় ঘাটি হিসাবে ব্যবহার করছে তারা।
পার্শ্ববর্তী এলাকা বিকে নগর নাওডোবা এবং শিবচর উপজেলাসহ জাজিরার বিভিন্ন এলাকা থেকে আসা উঠতি বয়সের ছেলেদের নানা রঙ্গের মোটরবাইক নিয়ে মাদক বিক্রেতার বাড়ি ও দোকানে যেতে দেখা যায়। উদ্দেশ্য একটাই মাদক সেবন করা। মাদক সেবনের পাশাপাশি ব্যবসার সঙ্গেও জড়িয়ে পড়েছেন অনেকে। আর এসব মাদকসেবীদের অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে স্থানীয় সাধারণ জনগণ। তারা ভয়ে মুখ খুলতে পারে না। এছাড়া উল্লেখিত স্থানগুলোতে অভিযান চালিয়ে সেবনের সময় পুলিশ হাতেনাতে অনেক মাদকসেবীকে ধরে নিয়ে এলেও তারা বিত্তশালী বা ক্ষমতাধর ব্যক্তির সন্তান বা আত্মীয় হওয়ায় খুব সহজেই পার পেয়ে যায়।
সূত্র আরও জানায়, সীমান্তে রয়ছে ইয়াবা জসিমের বিশাল সিন্ডিকেট, যারা শতাধিক স্থান দিয়ে প্রতিদিন ভারতীয় মাদকসামগ্রী পাচার করে নিয়ে আসছে।

প্রতিদিন এভাবে অবাধে মাদক বিক্রি ও সেবনের কারণে সমাজ যেমন ধ্বংসের দিকে যাচ্ছে তেমনি অর্থনৈতিকভাবেও ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছেন অনেক পরিবার। মাদকসেবীর সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় এলাকায় ছিঁচকে চোরের সংখ্যাও বেড়ে গেছে। বাজারে মাঝেমধ্যে বাইসাইকেল, মোটরবাইকসহ বিভিন্ন প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র চুরি হচ্ছে। অনেকের ধারণা মাদকসেবীরা মাদকের টাকা জোগাড় করতে না পারায় এভাবে চুরির সঙ্গে জড়িত হচ্ছে, এ ব্যাপারে জাজিরা থানার ওসি এনাম সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, মাদক বিরোধী অভিযান সব সময় চলছে এক্ষেত্রে কোনো ছাড় নেই।

এছাড়াও মাদক সম্রাট জসিমের বিরুদ্ধে রয়েছে থানায় একাধিক মামলা আছে বলে নিশ্চিত করেন তিনি।

অভিযানে ক্রেতাদের পাশাপাশি মাদক বিক্রেতাদেরও গ্রেফতারের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে বলে তিনি জানান। এছাড়া তাদের সমূলে নির্মূল করতে সচেতনমহলের সহযোগিতা কামনা করেন তিনি।

কে এই জসিম: জসিম হাওলাদার ওরফে ইয়াবা জসিম পূর্ব কুতুব পুর হাতেম আলী দাখিল মাদ্রাসায় ১ম শ্রেনীতে ভর্তি হয়ে পঞ্চম শ্রেনী পর্যন্ত পড়াশুনা করেন,শিক্ষকদের সামনে ধুমপান করায় তাকে স্থায়ী বহিস্কারের করেন মাদ্রাসার কর্তৃপক্ষ। পরবর্তী বিকে নগর পাবলিক উচ্চ বিদ্যালয় ভর্তি হন তিনি।

সেখান ৯ম শ্রেনী পর্যন্ত পড়াশুনা করে ছিটকে পড়েই শুরু করেন ইয়াবা ব্যবসা, চাঁদাবাজি ছিচকে চুরি।। প্রথমেই অল্প বিনিয়োগ দিয়ে শুরু করলে ও বর্তমান তিনি কোটিপতির তালিকায় রয়েছে তার নাম।

Comments

comments

Leave a comment

ফেসবুকে আমরা

লেখা পাঠান

আপনিও লিখতে পারেন। হতে পারেন আপনার জেলা কিংবা উপজেলার প্রতিনিধি।

সিভি পাঠান


news@digitalbangla24.com

উপরে