ইভটিজিংয়ের প্রতিবাদ করায় ছাত্রলীগ নেতা খুন

প্রকাশিত: ০৪-১১-২০১৮, সময়: ১৩:১৪ |
Share This

ছোট বোনকে উত্ত্যক্তের প্রতিবাদ করায় প্রাণ হারালেন ছাত্রলীগের সাবেক নেতা তনয় ইসলাম পাভেল।

শনিবার রাতে রাজধানীর জুরাইন মাজার গেট এলাকায় উত্তক্তকারী তুহিন, শাহিনসহ আরও কয়েকজন মিলে পাভেলকে ছুরিকাঘাত করলে গুরুতর আহত হনে তিনি। পরে তাকে উদ্ধার করে ঢামেক হাসপাতালে নেয়া হলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

নিহত পাভেল পটুয়াখালীর বাউফল উপজেলার কেশবপুর গ্রামের মনির হোসেনের ছেলে। সম্প্রতি স্থগিত হওয়া ছাত্রলীগের ৫৪ নম্বর ওয়ার্ডের কমিটির সাবেক সাংগাঠনিক সম্পাদক ছিলেন পাভেল।

জানা গেছে, কয়েকদিন আগেই বিয়ে করেছেন পাভেল। এখনও বিবাতোত্তের সংবর্ধনাও হয়নি।

এদিকে, পাভেলের স্ত্রী মাহিয়া জানান, তার ননদকে বখাটে তুহিন দীর্ঘদিন ধরে কলেজে আসা যাওয়ার পথে উত্যক্ত করত। গত সপ্তাহে পাভেল বিষয়টি জানতে পেরে এর প্রতিবাদ করে। এরপর তুহিন পাভেলকে দেখে নেয়ার হুমকি দেয়। দুই নভেম্বর আমার জন্মদিন ছিল। সেই উপলক্ষে সে আমাকে নিয়ে ঘুরতে যায়। পাভেলকে যখন মারে তখন আমি ওর সঙ্গেই ছিলাম। সেখানে তুহিন, মাসুম, রাব্বী, এরফানও যায়। তখন পাভেল তুহিনকে তার বোনকে উত্ত্যক্তের বিষয় নিয়ে গালিগালাজ করে এবং এক পর্যায়ে চড় থাপ্পড় মারে। তখন তুহিন দৌড়ে গিয়ে বাসা থেকে ধারাল অস্ত্র এনে বাংলা সিনেমার মত পাভেলের পেটসহ শরীরের বিভিন্ন জায়গায় আঘাত করে।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বাচ্চু মিয়া জানান, পেটসহ শরীরের বিভিন্ন জায়গায় ছুরির আঘাতসহ পাভেলকে হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। সকালে আইসিইউতে থাকা অবস্থায় সে মারা যায়।

শ্যামপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মিজানুর রহমান জানান, নিহত পাভেলের বোনকে বিরক্ত করতো তুহিন ও শাহিন। পাভেল ঘটনার প্রতিবাদ করায় ওই দুজন মিলে পাভেলকে ছুরিকাঘাত করেছে। এ ঘটনায় মামলা প্রক্রিয়াধীন, আসামিদের ধরার চেষ্টা চলছে।

Comments

comments

Leave a comment

ফেসবুকে আমরা

লেখা পাঠান

আপনিও লিখতে পারেন। হতে পারেন আপনার জেলা কিংবা উপজেলার প্রতিনিধি।

সিভি পাঠান


news@digitalbangla24.com

সর্বশেষ সংবাদ

উপরে