দ. এশিয়ায় প্রথম গণহত্যা-নির্যাতন জাদুঘর হচ্ছে বাংলাদেশে

প্রকাশিত: ১৩-১১-২০১৮, সময়: ০৪:৫১ |
Share This

ঢাকা:মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস জানাতে দক্ষিণ এশিয়ায় বাংলাদেশেই সর্বপ্রথম ১৯৭১ সালের গণহত্যা-নির্যাতন নিয়ে আর্কাইভ ও জাদুঘর নির্মাণ করবে সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়।

৩৩ হাজার ৫৯০ বর্গ কিলোমিটার আয়তনে ছয়তলা বিশিষ্ট জাদুঘর নির্মাণে মোট ব্যয় হবে ২৮ কোটি ১৩ লাখ ২৮ হাজার টাকা। ২০১৮ সালের ডিসেম্বর থেকে ২০২১ সালের জুন মেয়াদে এটি নির্মিত হবে।

মুক্তিযুদ্ধের সকল ইতিহাস ঠাঁই পাবে এই ভবনে। যুদ্ধকালে ঘটে যাওয়া গণহত্যা-নির্যাতন, বধ্যভূমি, গণকবর ও নানামুখী নির্যাতনের দুষ্প্রাপ্য ও অমূল্য উপকরণ সংগ্রহ করা হবে এখানে। মুক্তিযুদ্ধের মর্মকথা দেশি ও বিদেশি দর্শনার্থীদের সামনে উপস্থাপন করতেই এই জাদুঘর নির্মাণ করা হবে। সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয় সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

মন্ত্রণালয় সূত্র বলছে, ভবনে থাকবে তিন হাজার ১০০ বর্গ মিটারের ২৪০ আসন বিশিষ্ট একুয়াস্টিক কাজসহ একটি মাল্টি পারপাস হল ও একটি লাইব্রেরি আর্কাইভ। এছাড়া একটি বিশাল পাম্প হাউসসহ থাকছে ১৫ হাজার বর্গ মিটারের একটি আন্ডারগ্রাউন্ড ওয়াটার রিজার্ভার।

জাদুঘরের দ্বিতীয় তলায় এক হাজার ৬৫০, তৃতীয় তলায় দুই হাজার ৩০০ ও চতুর্থ তলায় এক হাজার ৭৩০ বর্গ মিটার আয়তন বিশিষ্ট একটি করে মোট তিনটি প্রদর্শনী গ্যালারি থাকবে।

এছাড়া ৮৩০ বর্গমিটার আয়তনের একটি গ্রন্থাগার ও ডিজিটাল আর্কাইভ থাকবে। তিনটি ডিওরোমা, কিউসেক, প্রয়োজনীয় আসবাবপত্র, লাইটিং-সাউন্ড, এসি ও লিফট কেনা হবে। সেইসঙ্গে একটি ম্যুরালসহ মাইক্রোবাসও কেনা হবে।

এ বিষয়ে সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (প্রশাসন) আব্দুল মান্নান ইলিয়াস বলেন, দক্ষিণ এশিয়ায় প্রথম ‘গণহত্যা-নির্যাতন’ জাদুঘর হচ্ছে আমাদের দেশে। সকল প্রক্রিয়া অব্যাহত আছে। মুক্তিযুদ্ধের সকল ইতিহাস এই জাদুঘরে সংরক্ষণ করা হবে। আমরা ঢাকার মধ্যে জমি খুঁজছি। তবে আগারগাঁও অথবা শিল্পকলার পেছনের স্থানে এই জাদুঘর নির্মিত হবে বলে আশা করছি।

মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, মুক্তিযুদ্ধের প্রধান বিষয় গণহত্যা। দেশের আনাচে-কানাচে অসংখ্য বধ্যভূমি ও গণকবর। নির্যাতনের শিকার বহু নারী এখনও লোমহর্ষক স্মৃতি রোমন্থন করেন। বর্তমানে গণহত্যার বৃত্তান্ত, বধ্যভূমি ও গণকবরের কথা, এমনকি নির্যাতনের কথা বিজয়ের গৌরব-ভাষ্যে উপেক্ষিত থেকে গেছে। যার ওপর ভিত্তি করে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে বাংলাদেশ। আর এই গণহত্যা-নির্যাতন আর্কাইভ ও জাদুঘর প্রতিষ্ঠার মধ্য দিয়ে উপেক্ষিত সেই ইতিহাস দেশে-বিদেশে প্রতিষ্ঠিত হবে।

গণহত্যা, বধ্যভূমি ও গণকবর সংক্রান্ত দলিল, নথিপত্র, ছবি সংরক্ষণের কোনো বিশেষায়িত আর্কাইভ বাংলাদেশে নেই। সে কারণে জাদুঘরের সঙ্গে একটি আর্কাইভ, গ্রন্থাগার গড়ে তোলা হবে। এছাড়া যুদ্ধে গণহত্যা-নির্যাতন সম্পর্কিত অভিজ্ঞতা বিনিময়ের জন্য যেসব দেশে গণহত্যা জাদুঘর রয়েছে সেসবে জাদুঘরের পক্ষ থেকে শিক্ষা সফরেও পাঠানো হবে।

প্রকল্পটি বাস্তবায়ন হলে মুক্তিযুদ্ধকালে ঘটে যাওয়া গণহত্যা-নির্যাতন, বধ্যভূমি, গণকবর ও নানামুখী নির্যাতনের তথ্য ও উপকরণ দেশে-বিদেশে প্রদর্শন করা যাবে। মুক্তিযুদ্ধ, গণহত্যা ও নির্যাতন সংক্রান্ত ছয় হাজারেরও বেশি আলোকচিত্র সংরক্ষণ হবে এখানে। এছাড়া আড়াই হাজারের সঙ্গে চিহ্নিত বধ্যভূমিগুলো নির্দিষ্ট করতে স্মারক মানচিত্র তৈরি করা হবে। সেইসঙ্গে বাংলাদেশ ও ভারতে আর্ট ক্যাম্প করে গণহত্যা-নির্যাতনের ওপর ৩২টি শিল্পকর্মসহ মানবতাবিরোধী অপরাধে দণ্ডিতদের আদালতের রায়ের কপিও এখানে প্রদর্শন করা হবে।

দুই হাজার গ্রন্থ ও নানা শ্রেণির মানুষের কাছ থেকে মুক্তিযুদ্ধের শহীদ এবং গণহত্যা নিদর্শনগুলোও সংরক্ষণ করা হবে জাদুঘরে। শিল্পকর্ম এবং একাত্তরের শহীদ বৃদ্ধিজীবীদের স্মারক চিহ্নগুলো সংগ্রহ করা হবে এতে। বিশেষ করে শহীদুল্লাহ কায়সারের ডায়েরি, ডা. আলিমের ডাক্তারি যন্ত্রপাতি, সেলিনা পারভীনের শাড়ি, মুনীর চৌধুরীর পাঞ্জাবি কিংবা সিরাজউদ্দিন আহমদের পরিধেয় কাপড়।

Comments

comments

Leave a comment

ফেসবুকে আমরা

লেখা পাঠান

আপনিও লিখতে পারেন। হতে পারেন আপনার জেলা কিংবা উপজেলার প্রতিনিধি।

সিভি পাঠান


news@digitalbangla24.com

সর্বশেষ সংবাদ

উপরে